দেবযানি বসু-র কবিতা

Spread This
দেবযানী বসু

দেবযানি বসু

টেবলক্লথ ঢাকা শীত


হিমেল অ আ ক খ পড়ে নীলাভ চাঁদ। বুটিদার নীহারিকা খেড়ো মাঠে কাকতাড়ুয়া ধরবে বলে নেমে পড়ে। চোখের পাতায় নামে উত্তর গোলার্ধের ঘরবাড়ি।একপাল্লা খোলা জানালা। পর্দা ছিঁড়ে পড়ে চিঠির স্রোতে। আরো একটা দিন সহ্য করো… সহ্যের দিন মাস বছর প্রবাদে জিইয়ে রাখে আমাদের। আমরা ক্রমশ কেকমূর্তি হয়ে যাই। বাগানের শীত জুম করে আপেল আসে।


সর্ষেফুল চোখের শিশির

ডাকিনীর সুডৌল মৌনতা শীতকালীন ভালোবাসার শুরু করে। গিটার ও ধনুক পথের পয়সা কুড়িয়ে নেয়। পাহাড়ের পায়ে শীত  ডাকিনীর রূপকথা মাখা। ঘরচৌকি জুড়ে আইসক্রিম লোফালুফি খেলা। জ্বর হোক। বুঝে নেব নীল ডায়েরি জড়িয়ে ওড়নার ঘুম কতোটা ম ম করছে। অক্সিজেনের বিশুদ্ধ রাগ।ঠাপ বিলাসতোড়ি। ঠাট বিলাবল। তুলি দিয়ে নলেনরস ঘষি ঠোঁটে।কে জানে ঠোঁট ফাটা চুমু ফিরে আসতেও পারে।



জোনাকির ইমন গমন

কবিতা ছাঁকা নিয়তি। রান্নায় আন্দাজ মতো মেশাই। উনুন এক আলেয়া। আলেয়া যতদিন দেবতা ততদিন কোনো ঝামেলা ছিল না। আশমানি প্রদীপ ভাসিয়েছি। লালপাতা অ্যাকাসিয়া মুর এভিনিউয়ে অপেক্ষায়। ধন্যবাদ সহযোগে খোয়াব জলপান। হিমেল হাওয়ার আগুনে রান্নাঘরের কথকতা হুহু ওড়ে। বাচ্চাদের সান্টা এই শীতে বন্ধ স্কুলে মুখ লুকিয়ে রেখেছে।দেখা হলে সব বলিব।