প্রবীর চক্রবর্তী-র কবিতা

Spread This

প্রবীর চক্রবর্তী

আপনাকে, মহাশয় কামু
 
ভোরবেলা বেরিয়ে দেখা হল কামুর সঙ্গে;
নিস্তব্ধ জাতীয় সড়ক, কোনো ভারী ট্রাক চলে যাওয়ার মতো আমাদের কথোপকথন। 
আমাদের মাঝখানে দু-গজ শূন্যতা ভেসে ছিল হাওয়ায়!
 
একটা শহর থেকে আর-একটা শহরে চলে যাওয়া ভয়
ভয়ের প্রতিচ্ছবি ঠোঁটে নিয়ে উড়ে গেল পাখি-‐-
 
এক শিল্প মাধ্যম থেকে আর-এক শিল্প মাধ্যমে
এক্কা দোক্কা খেলছে ভোরের হাওয়া।
 
যথার্থ কোনো ভালোবাসা অথবা হিংসা—
কোনো আলোচনা আমরা করে উঠতে পারিনি
এতক্ষণ। 
 
                                 
 
বাতিল ঘোড়ার দিনলিপি 
 
সমস্ত স্থির চিত্রের পেছনে
          একটা পাহাড় থাকে
                      একটা ঝরনা থাকে
                                  অথবা কেয়ারি করা কিছুটা ফুলের বাগান।
 
চন্দনদা, কাল মাঝদুপুরে আকাশে রামধনু উঠেছিল
সিঁড়ির পর সিঁড়ি সিঁড়ির পর সিঁড়ি ভেঙে
যখন ছেলেকে নিয়ে ছাদে গেলাম 
তখন ক্রমশ মিলিয়ে যাচ্ছে রং!
 
ওই দ্যাখ বাবা বেগুনি
ওই দ্যাখ নীল
ওই যে ওই ওই
বলতে বলতে যখন হাঁপিয়ে উঠেছি
 
ছেলে তখন বলল বাবা রামের হরধনু 
ভঙ্গের গল্পটা বলো না একবার।