অংশুমান-এর কবিতা

Spread This
Anshuman dey

অংশুমান

অধোদেশ

১।
যে গাছ পুঁতেছিল অঙ্গে
অঙ্গে যার
একদিন আপেল কিম্বা হরিতকী হবে
পৃথিবীর বুকে তবু ঝিমঝিম আঁধার
গড়িয়ে নিয়ে যায় সাইকেল
কুয়াশা বার্ধক্য
ঘাসের মাথা বেয়ে শিস দেয় বাতাসের ঠোঁট
মরা কুত্তার মত রাত, লাথিতেও নড়ে না
চার মাতাল বাঁটোয়ারা করে নেয় চাঁদ
বিনা তর্কে

২।
যাদের বালিশের ভিতর ছিল
পাট খোলা শাড়ি, গোধূলির ঘুড়িকাটা সূর্য
বুকের ভিতর ছিল প্রকৃত কমলালেবু
একদিন ধানশিশ্ন ছুঁয়ে
জিভ গলেছিল
মোম মোম হয়ে
যাদের নাভিডগায় চড়ুইয়ের বাসা
ভোর হলে যারা সেতারের শীৎকার হত
শেষদিন জলের নরম দেখে
ডুব দিয়েছিল

৩।
কাদের মধ্যে বেঁচে আছে প্রেম
কাঠুরিয়া অথবা কসাই-এর মতো
শীতের বোবায় রসুনের কোয়া
আনশান কারা দান করে
ফকিরির গল্পে হয় বাজপাখি
মরচে ধরা আঙ্গুলে বাতি জ্বালিয়ে ফেরে
সমুদ্র বালি ছুঁয়ে ভেঙ্গে যায় প্রতিজ্ঞা কার
কাদের কপালের ভিতর
বজ্রবিদ্যুত বুকের থেকে গুঢ়

৪।
ক্লেদগান ভেসে আসে ধিম ধিম
একমাত্র পরিশ্রম নিঃশ্বাস
একমাত্র
প্রক্রিয়া ধূসর হলে শুষ্ক চোখ
নিম নিম হয়তো প্রান্তর আঙ্গুলের গোচরেই
থেকে যাবে নির্মেদ মেঘের স্তব্ধতা
পরিজন থেকে যাবে
একমাত্র